রামেকে নিপা ভাইরাসে প্রাণ গেল শিশুর

তাহানুল মারুফ
জানুয়ারি ২৪, ২০২৩

Share Now

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) চিকিৎসাধীন নিপা ভাইরাসে আক্রান্ত সোয়াদ নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।
 
সোমবার সকালে রামেক হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।  রামেক হাসপাতালের আইসিইউ প্রধান ডা. আবু হেনা মোস্তফা কামাল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে রোববার সন্ধ্যায় তার নিপাহ ভাইরাস শনাক্ত হয়।

পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার সানোয়ারের ছেলে সোয়াদ। এ নিয়ে চলতি বছরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে দুইজন নিপা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেল।

ডা. আবু হেনা মোস্তফা কামাল জানান, শুক্রবার সকালে খেজুরের কাঁচা রস খেয়েছিল সোয়াদ। এরপর জ্বর, খিঁচুনি ও অচেতন হয়ে যায়। শুক্রবার বিকালে রামেকের শিশু ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। শনিবার সকালেই শিশুটিকে আইসিইউতে রেফার্ড করা হয়। চিকিৎসকদের সন্দেহ হওয়ায় নিপা ভাইরাসের পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। রোববার ফলাফল পেলে নিপা ভাইরাস সংক্রমণ নিশ্চিত হই। এ সংক্রমণের কারণেই ওই ছোট্ট বাচ্চাটি মরণাপন্ন অবস্থায় চিকিৎসাধীন ছিল। সোমবার সকালে সোয়াব চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

আইসিইউ প্রধান নিপা ভাইরাস থেকে বাঁচতে সচেতনতার পরামর্শ দিয়ে বলেন, খেজুরের কাঁচা রস খেতে খুব মজা, এটা প্রায় সবারই পছন্দ। বাচ্চার বাবা-মা খুব শখ করেই খেজুরের কাঁচা রস খেতে দিয়েছিল। তখন কি জানত এটার মধ্যে এ মরণ ভাইরাস আছে? সরকারিভাবে শীতের সময় মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করা হয়। বাদুড়ের সংস্পর্শে আসা খেজুরের রস অবশ্যই খাবেন না। নিজ পরিচিত বন্ধু-বান্ধবী আত্মীয় স্বজনদের খেতে দেবেন না।

এর আগে চলতি বছরের শুরুতেই রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক নারীর নিপা ভাইরাসে মৃত্যু হয়। মৃত ওই নারী গোদাগাড়ী উপজেলার মাটিকাটার বাসিন্দা।